1. admin@spicynews24.com : admin :
  2. nfjsduwdwdyu@gmail.com : mk tr : mk tr
প্রবাসীর স্ত্রীকে ফাঁদে ফেলে অর্থকড়ি হাতিয়ে নেয়া প্রতারক মোশাররফের পেশা ! -
শিরোনাম
অনেক প্রবাসী পাসপোর্ট নিয়ে অবহেলা করেন। অথচ এই পাসপোর্ট ছাড়া তার…. হাত জোর করে কি বলছেন সানি লিওন? তুমি আমার এমন একটি অংশ স্পর্শ করেছো যা এখন পর্যন্ত আর কেউ পারেনি : প্রভা দীপিকা এমনভাবে অনুরোধ করেছিলো না করতে পারিনি: তাহসান স্বামীর সঙ্গে পরকীয়া, তরুণীকে প্রকাশ্যে জুতাপেটা স্ত্রীর অবশেষে মণ্ডপে পবিত্র কোরআন রাখা ব্যক্তির নাম পরিচয় জানা গেল সৌদি আরবে পৌঁছার ২ ঘণ্টা পরেই সাইদুর রহমানের মৃ’ত্যু সৌদির জেদ্দায় অবস্থানরত প্রবাসীদের জন্য জরুরী খবর আটকে গেলো মালয়েশিয়ায় নতুন নিয়মে শ্রমিক নেওয়া ডাস্টবিনে কুড়িয়ে পাওয়া মেয়েটি তার সবজি বিক্রেতা বাবাকে এতো বড় প্রতিদান দিল

প্রবাসীর স্ত্রীকে ফাঁদে ফেলে অর্থকড়ি হাতিয়ে নেয়া প্রতারক মোশাররফের পেশা !

  • আপডেটঃ মঙ্গলবার, ২ ফেব্রুয়ারী, ২০২১
  • ৫ বার পঠিত

 

প্রবাসীর স্ত্রীকে ফাঁদে ফেলে অর্থকড়ি হাতিয়ে নেয়া প্রতারক মোশাররফের মূল পেশা ! ফেনীর ভোরবাজারের ঘটনাটি ইতিমধ্যেই বেশ আলোচিত । ২ জানুয়ারি সন্ধ্যা ৭ টায় শ্বশুর বাড়ি থেকে বিপুল স্বর্ণালংকার এবং নগদ অর্থকড়ি নিয়ে পরপুরুষ মোশাররফের কাছে পালিয়ে যায় সৌদি প্রবাসীর স্ত্রী নাজমা আক্তার ।

সে সন্ধ্যায় বৃদ্ধ শ্বশুর যখন মসজিদে নামাজ পড়তে যান, সে সুযোগ কাজে লাগিয়ে পালিয়ে যায় নাজমা আক্তার ।নাজমা আক্তার সৌদি আরবের দাম্মাম প্রবাসী শহীদুল্লাহর স্ত্রী । স্ত্রীকে ভালোবেসে এবং বিশ্বাস করে স্বর্ণলংকার এবং অর্থকড়ি স্ত্রীর কাছে রেখেছিলেন শহীদুল্লাহ ।

স্ত্রী সুন্দরভাবে চলবে, এই ছিল শহীদুল্লাহর একমাত্র চাওয়া ।ডাকঘর প্রতিবেদক দাম্মাম প্রবাসী শহীদুল্লাহর সঙ্গে মুঠোফোনে সরাসরি যোগাযোগ করেন । সৌদি প্রবাসী শহীদুল্লাহর কথাগুলো আমরা তার ভাষাতেই তুলে ধরছি। শহিদুল্লাহ ডাকঘরকে জানান, – “২০১৬ তে আমি নাজমাকে বিয়ে করি ।

আগেও তার একটি বিয়ে হয়েছিল । সে স্বামীও ছিলেন সৌদি প্রবাসী । ঘটনাক্রমে তার আগের স্বামী সৌদি আরবে মারা যান । সে ঘরে তার একটি ৭ বছরের ছেলে সন্তানও রয়েছে । স্বামী মারা যাবার পর বাড়ির কাছের নাজমার সঙ্গে আমার পরিচয় ঘটে । মাঝে মাঝেই আমাদের মাঝে ফোনালাপ হতে থাকে।

বিয়ের আগে দু’বছর এভাবে তার সঙ্গে ফোনে আমার একধরনের সম্পর্ক গড়ে উঠে । নাজমাকে আমার ভালো লাগতে থাকে । সৌদি আরব থেকে ছুটিতে গিয়ে ২০১৬ তে আমি তাকে বিয়ে করি । তারপর নির্দিষ্ট সময়ের পরেও আমাদের কোন সন্তান হয় না । ছুটি কাটিয়ে আমি প্রবাসে কাজের ক্ষেত্রে ফিরে আসি !

এরমধ্যেইএকসময় জানতে পারি, বাড়ির মাইলের মধ্যে এক যুবকের সঙ্গে তার সম্পর্কের কথা জানতে পাই ! তখন তার পরিবার, তার ভাইয়েরা পরকীয়া সম্পর্কের জন্য তাকে মারধরও করে ! দুই পরিবার এবং দুই সমাজের সমঝোতায় আমি তখন আবারও তাকে মেনে নেই-এই ভেবে যে,- অনেক মুরুব্বিরাই আমাকে বুঝাতে থাকেন,’মানুষই ভুল করে, শোধরাবার অন্তত একটা সুযোগ দেয়া দরকার !’ কথাটি আমারও মনে ধরে ।

আমি তাকে ভালোবাসি ! মনে হতে থাকে, একটা সুযোগ তাকে দেয়া দরকার ।” “কিন্তু এরকম একটি ঘটনার পরও আপনি তার কাছে বিপুল অংকের স্বর্ণালংকার এবং অর্থকড়ি রাখলেন ? এই বিষয়টি আপনি কীভাবে ব্যাখ্যা করবেন ?” ডাকঘরের এই প্রশ্নের জবাবে শরিফুর ডাকঘর প্রতিনিধিকে জানান, – “ভাই , আমি চাইতাম তার মনটা বড় থাকুক সবসময় । সে কান্নাকাটি করে আমার কাছে অনেক ক্ষমা চাইতো !

তার প্রতি আমার মনেও দুর্বলতা ছিল । প্রবাসীর স্ত্রী হিসেবে সোনা গহনায়, সম্পদে সে যেন মন বড় করে থাকতে পারে, এটাই ছিল আমার চাওয়া । আমিতো তাকে বিশ্বাস করেছিলাম । “ “এমনকি আমি তাকে সৌদি আরব এনেছিলাম ভিজিট ভিসাতে । দীর্ঘ সময় একসঙ্গে থাকলে আমাদের সন্তান কনসিভ করবে, আর মমতাটাও বাড়বে, এই আশাতে আমি তাকে সৌদি আরব এনে ৭ মাস রেখেছিলাম ।

কয়েকবার ওমরাহ করিয়েছি তখন । সে বারবার অতীত ভুলের জন্য ক্ষমা চেয়েছে তখনও । সন্তান ধারনের জন্য আমি তখন বিভিন্ন ডাক্তার দেখিয়ে মোটা অংকের টাকা খরচ করেছি তার জন্য । আল্লাহর রহমতে সে সময় সে কনসিভও করেছিল । ৭ মাস পর সে যখন দেশে ফিরে গিয়েছিল, তখন সে ছিল ৪ মাসের গর্ভবতী । আমার কি দুঃখ দেখেন, সৌদি আরব থেকে সে দেশে ফিরে যাবার ২ দিন পরেই গর্ভের সন্তানটি নষ্ট হয়ে যায় ।

তখনও তাকে আবার অপারেশন করা লেগেছে । এতকিছুর পরও আবার সে এই কাজটি করলো! আমি চাই, আইন প্রশাসন আমাদের সহযোগিতা করে আমার স্বর্ণালংকার নগদ অর্থকড়ি ফিরে পেতে সাহায্য করবে !” এ প্রসঙ্গে শরিফুল আরো জানান, ফেনী মডেল থানা এবং বারৈয়ারহাটে পৃথক দুটো মামলা হয়েছে ! যদিও মামলার কোন অগ্রগতি নেই বলে তিনি হতাশা প্রকাশ করেছেন । নাজমা এবং মোশাররফ এখনও পলাতক !

শহীদুল্লাহ জানান, ২৯ ভরী স্বর্ণ , নগদ টাকা ও মালামালসহ প্রায় অর্ধ কোটি টাকার সম্পদসহ তার স্ত্রী নাজমাকে ভাগিয়ে নিয়েছে মোশাররফ ! কে এই মোশাররফ ? বারৈয়ারহাট বাজারে দোকান করেন মোশাররফ । ব্যবসার আড়ালে প্রবাসীর স্ত্রীদের টার্গেট করায় তার কাজ । ইতিপূর্বেও প্রবাসীর স্ত্রীর সঙ্গে পরকীয়ার নাটক করে অর্থকড়ি হাতিয়ে নেবার প্রমাণ ডাকঘর প্রতিনিধির হাতে জমা হয়েছে ।

ইতিপূর্বেও মোশাররফ প্রবাসীর স্ত্রীকে পরকীয়ার ফাঁদে ফেলে অর্ধলক্ষ টাকা সমপরিমাণ সম্পদ হাতিয়ে নেয় বছর কয় আগেও একইরকম পরকীয়ার ফাঁদে ফেলে প্রবাসীর স্ত্রীকে ভাগিয়ে নেয় প্রতারক মোশাররফ । ১৪ বছরের এক সন্তানের মাকে বিয়ে করে সে হাতিয়ে নেয় ৫০ লক্ষ টাকার সমপরিমাণ স্বর্ণালংকার ! সে সময়ও স্থানীয় বিভিন্ন পত্রিকায় ওই খবর প্রকাশিত হয়েছিল ।

প্রবাসীর পরিবারকে টার্গেট করে স্ত্রীদের সঙ্গে প্রেমের অভিনয় করে অর্থকড়ি হাতিয়ে নেয়া প্রতারক মোশাররফকে আইনের আওতায় এনে উপযুক্ত বিচার করবে প্রশাসন-এই দাবি এখন সকল প্রবাসীর ।

সংবাদটি শেয়ার করুন

এই ধরনের আরও খবর পড়ুন
© 2021 | All rights reserved by Spicy News
Customized BY Spicy News