Wed. Jan 26th, 2022

 

নারায়ণগঞ্জ সিটি কর্পোরেশন নির্বাচন যেন শুধুমাত্র মেয়র হওয়ার নির্বাচন নয়, এটি এখন রীতিমতো শামীম-আইভি লড়াইয়ে পরিণত হয়েছে। সেলিনা হায়াৎ আইভি যখন প্রথমবার নির্বাচিত হয়েছিলেন, তখন এটি নারায়ণগঞ্জ পৌরসভা ছিল। পৌরসভার ওই নির্বাচনে তিনি লড়েছিলেন বিএনপির বিরুদ্ধে এবং তখন বিএনপিও ক্ষমতায় ছিল।

সেসময় শামীম ওসমান দেশে ছিলেন না। কিন্তু তার পর থেকে প্রতিটি নির্বাচনেই সেলিনা হায়াৎ আইভিকে দুই প্রতিপক্ষের সাথে লড়াই করতে হচ্ছে। একটি হচ্ছে নৌকা প্রতীকের বিরুদ্ধে থাকা বিএনপির প্রার্থীর সঙ্গে প্রতিদ্বন্দ্বিতা। আবার অন্যদিকে তাকে দলের ভেতরও লড়াই করতে হচ্ছে। সেলিনা হায়াৎ আইভি এবং শামীম ওসমানের বিরোধ নতুন নয়।

পারিবারিক বিরোধের সূত্রেই এ বিরোধের জন্ম। সেলিনা হায়াৎ আইভির পিতা আলী আহমেদ চুনকা যেমন আওয়ামী লীগের দু:সময়ের সারথি ছিলেন, ঠিক তেমনি শামীম ওসমানের পিতা এ কে এম সামসুজ্জোহাও আওয়ামী লীগের অন্যতম প্রতিষ্ঠাতা সদস্য এবং জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ঘনিষ্ঠ সহচর হিসেবে পরিচিত। এই দুই জনের লড়াইটি আদর্শের নয়, ব্যক্তিগত এবং অনেকটাই মনস্তাত্ত্বিক। তাদের এ লড়াই বিভিন্ন সময়ই প্রকাশিত হয়।

এই কয়দিন আগেই কবরস্থান নিয়ে দুই জনের মধ্যে বিতর্ক জমে গেল। করোনার সময়েও থেকে থেকে তাদের মধ্যে বিতর্ক হয়েছে। শামীম ওসমানের রাজনীতির লক্ষ্য যেমন বিরোধী দলকে পরাজিত করে নারায়ণগঞ্জে আওয়ামী লীগের শক্তি বৃদ্ধি করা। তেমনি সেলিনা হায়াৎ আইভিরও একই লক্ষ্য। কিন্তু এই দুইজন যেন দুইজনকে রাজনীতি থেকে নি:শেষিত করতে চায়, তা বিভিন্ন সময় দেখা যায়। গত নির্বাচনের সময় শামীম ওসমানও মনোনয়ন চেয়েছিলেন।

কিন্তু আওয়ামী লীগ সভাপতি শেখ হাসিনা শেষ পর্যন্ত সেলিনা হায়াৎ আইভিকেই মনোনয়ন দিয়েছিলেন। এই মনোনয়ন দেয়ার পর শামীম ওসমান নৌকা প্রতীকের পক্ষে প্রচারণা তো করেইনি, বরং ভোটের দিন কেন্দ্রে গিয়ে এমন কিছু কাণ্ড ঘটিয়েছেন, যা সেলিনা হায়াৎ আইভির বিপক্ষে যায়। এরপর জাতীয় নির্বাচনে শামীম ওসমান মনোনয়ন পান। সেখানেও আইভির ভূমিকা ছিল রহস্যময়।

এখন আবার এই নির্বাচনে শামীম ওসমানের ভূমিকা কেমন হবে? তিনি কি এবার সেলিনা হায়াৎ আইভির বিরোধিতা করবেন? এবারের নির্বাচনে আবার অন্যরকম একটি তাৎপর্য আছে। এই নির্বাচনে বিএনপি অংশগ্রহণ করছে না। বিএনপি ইতোমধ্যে ঘোষণা করে দিয়েছে যে, তারা এই সরকারের এবং নির্বাচন কমিশনের অধীনে কোনো ধরণের নির্বাচনে যাবে না। সে ধারায় বিএনপি ইউনিয়ন পরিষদ (ইউপি) নির্বাচন পর্যন্ত বর্জন করেছে। বিএনপি যদি নির্বাচন না করে, তাহলে এই নির্বাচন হবে একটি উত্তাপহীন নির্বাচন। সেই নির্বাচনে কি উত্তাপ ছড়াবেন শামীম ওসমান?

Leave a Reply

Your email address will not be published.