Wed. Jan 26th, 2022

 

বেগম খালেদা জিয়ার লিভার সিরোসিসের কারণ অনুসন্ধান করতে গিয়ে দেখা গিয়েছে ভুল ঔষধ খাওয়ার জন্য আস্তে আস্তে বেগম খালেদা জিয়া লিভার সিরোসিসে আক্রান্ত হয়েছেন। বেগম খালেদা জিয়ার মূল অসুখ হলো অস্টিওআর্থারাইটিস।

দীর্ঘদিন ধরে তিনি এই রোগে ভুগছিলেন। অস্টিওআর্থারাইটিস একটি বয়স সম্পর্কিত রোগ, যা কার্টিলেজের ক্ষয় বা ছিঁড়ে যাওয়ার জন্য হয়ে থাকে। বিএনপি চেয়ারপারসন বেগম খালেদা জিয়া এ রোগে আক্রান্ত হওয়ার পর তার বিভিন্ন ধরনের চিকিৎসা নেয়া হয়েছে।

কিন্তু তারেক জিয়ার বিয়ের পর এই চিকিৎসার পুরো দায়িত্বই পড়ে তারেক জিয়ার স্ত্রী ডা. জোবাইদার ওপর। এই রোগ হলে পায়ে, গিটে প্রচণ্ড ব্যথা অনুভূত হয়। আর এই ব্যথা উপশম করার জন্য বেগম জিয়াকে হাই-পাওয়ার এন্টিবায়োটিক ইনজেকশন এবং ওরাল পথ্য হিসেবে প্রেসক্রিপশন করেছিলেন ডা. জোবাইদা।

ব্যথানাশক ওষুধের মধ্যে অ্যাসপিরিন, কিটোপ্রোফেন, পাইরোকসিকাম, ন্যাপ্রোক্সেন। আর ইনজেকশন এবং ওরাল পথ্যের মধ্যে ছিলো পেনিসিলামাইন, সালফালাইজিন, কোরাকুয়িন, ডেপসন এবং লিভামিসোল। উল্লেখ্য যে, ডা. জোবাইদা লন্ডনে ইমপেরেল মেডিকেল কলেজ থেকে চিকিৎসাশাস্ত্রে পড়াশোনা করলেও কখনো প্র্যাকটিস করেননি। জিয়া পরিবারের একজন সদস্য দাবি করেছেন যে, তিনি কখনোই প্রাক্টিসিং ডাক্তার নয়।

ডা. জোবাইদা তার শাশুড়ির জন্য যে প্রেসক্রিপশন দিয়েছিলেন তা কি তিনি জেনেশুনে দিয়েছিলেন কিনা সেই প্রশ্ন এখন উঠেছে। এভারকেয়ার হাসপাতালের চিকিৎসকরা নিশ্চিত করেছেন যে, দীর্ঘদিন ধরে ব্যথা উপশমের জন্য এ ধরনের ঔষধ খাওয়ার ফলে লিভারে আক্রান্ত হয়েছেন যা সকলেই জানে।

যখন উচ্চমাত্রার ব্যথানাশক ঔষধ খাওয়া হবে তখন তা লিভারে প্রতিক্রিয়া ফেলবে এবং বেগম খালেদা জিয়ার ক্ষেত্রে সেই ঘটনাটি ঘটেছে বলে মনে করা হচ্ছে। এই নিয়ে বিএনপিতে এখন তোলপাড় চলছে। বিএনপির মধ্যে অনেকেই প্রশ্ন তুলেছেন যে, বেগম খালেদা জিয়াকে তাহলে জোবায়দাই স্লো পয়জনিং করেছেন। ভুল চিকিৎসার কারণেই কি বেগম খালেদা জিয়ার আজকের এই অবস্থা। ডা. জোবাইদা এটি কেন করেছেন। এখন বিএনপির মধ্যে মোটামুটি সকলেই নিশ্চিত যে ডা. জোবাইদাই বেগম খালেদা জিয়ার আজকের অবস্থার জন্য দায়ী। বিশেষ করে লিভার সিরোসিসের জন্য ডা. জোবাইদা ভুল ওষুধ দায়ী এটা নিয়ে বিএনপি’র এবং এভারকেয়ার হাসপাতাল কারও মধ্যে কোন সংশয়, সন্দেহ নেই।

কিন্তু প্রশ্ন হল যে ডা. জোবাইদার মত একজন মেধাবী চিকিৎসক এটি কি ভুল করে করেছেন নাকি ইচ্ছাকৃতভাবে করেছেন। বিএনপির মধ্যে অনেকের সন্দেহ তারেক জিয়া ভারপ্রাপ্ত থেকে ভারমুক্ত হওয়ার জন্য স্বপ্রণোদিত হয়ে এরকম কাণ্ড করেছেন। আবার অনেকেই মনে করেন যে তারেক জিয়া কখনোই চান না যে বেগম খালেদা জিয়া বিএনপির কর্তৃত্ব আগের মতো নিক আর এ কারণেই বেগম খালেদা জিয়াকে নিঃশেষ করার জন্য তিনি তার স্ত্রী জোবাইদা রহমান কে ব্যবহার করেছেন।

তারেক জিয়ার বর্তমান সময়ে আচার-আচরণ এবং তার মায়ের অসুস্থতা নিয়ে তার প্রতিক্রিয়া দেখে বিএনপির মধ্যে এই সন্দেহ ক্রমশ দানা বাঁধছে। আর এ কারণেই স্লো পয়জনিং নিয়ে বিএনপিতে এখন এক ধরনের তোলপাড় শুরু হয়েছে।

Leave a Reply

Your email address will not be published.