Wed. Jan 26th, 2022

 

শনিবার (১৮ ডিসেম্বর) সংসদ সদস্য ও ক্রিকেটার মাশরাফি বিন মর্তুজা হাসপাতালে যাওয়ার পর তাঁর কাছে ডায়রিয়া ওয়ার্ডে ১৫ মাসের এক শিশু রোগীর দাদী হাসপাতালের বিভিন্ন অ’নিয়’মের অভিযোগ করায় ওই মহিলাকে রোববার (১৯ ডিসেম্বর) হাসপাতালের আউটসোর্সিং-এর এক কর্মচারি মা’রধ’র করেছে বলে অভিযোগ উঠেছে।

জানা গেছে, শুক্রবার (১৭ ডিসেম্বর) সদরের বাঁশগ্রামের মিনারুল মোল্যার ১৫ মাসের শিশু কন্যা রুকাইয়া ডায়রিয়া জনিত রোগে সদর হাসপাতালের ডায়রিয়া ওয়ার্ডে ভর্তি হয়। শনিবার নড়াইল-২ আসনের এমপি মাশরাফি সকাল সাড়ে ৮টার দিকে সদর হাসপাতালের বিভিন্ন ওয়ার্ডে রোগিদের কাছে গেলে তখন রুকাইয়ার দাদিসহ অনেকেই হাসপাতালের বিভিন্ন অ’নিয়’মের চিত্র তুলে ধরেন।

এ কারনে রোববার দুপুরে রুকাইয়ার দাদীকে হাসপাতাল এর আয়া পারভীন খানম মা’রধ’র করে। এ ঘটনার পর রুকাইয়ার দাদী তহমিনা বেগম অভিযোগে জানান, দুপুর বেলায় এক আয়া আসলে বলি ভাত দিতে, তখন সে চিল্লায়ে বলে তোর নাম নেই ভাত দেওয়া যাবে না। যারা খাবার না নিয়ে দুপুরের আগেই বাড়ি চলে গেছে তাদের একজনের খাবার দিলি কি হবেনে।

তখন আয়া বলে যেমন কুকুর তেমন মুগুর না দিলে ঠিক হবেনা। আমি বলি আমি কুকুরের কি করেছি। তখন আমার চুলের মু’ঠি ধ’রে স্যা’ন্ডে’ল দিয়ে মা’রছে। শনিবার মাশরাফি হাসপাতালে আসলে অভিযোগ করিছিলাম হাসপাতালে ময়লা থাকে, ডাক্তাররা ঠিক মতো দেখতিছে না, সেবা দিচ্ছে না, খাবার দেয় না, এইসব কথা বলেছিলাম সেই জন্য ভাত চাওয়ার সময় প্রতিশোধ নিয়েছে।

হাসপাতাল সূত্রে জানা গেছে, রোববার (১৯ ডিসেম্বর) দুপুরে ৬ বেডের ডায়রিয়া ওয়ার্ডে রোগী ভর্তি ছিল ২৪জন। সেখানে ১১ জনকে দুপুরের খাবার দেওয়া হয়। তার মধ্যে রুকাইয়ার পরিবারের কারও নাম ছিল না। এ বিষয়ে সদর হাসপাতালের তত্বাবধায়ক ডাঃ আসাদ উজ-জামান মুন্সী বলেন, এক আয়া কর্তৃক রোগীর আত্মীয়কে মা’রধ’রের ঘটনার বিষয়টি ত’দ’ন্ত করতে হাসপাতালের আরএমও ডা. মশিউর রহমান বাবুকে দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে, ত’দ’ন্ত সাপেক্ষে পরবর্তী ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

Leave a Reply

Your email address will not be published.