Wed. Jan 26th, 2022

 

আগামী রোববার নারায়ণগঞ্জ সিটি কর্পোরেশনের নির্বাচন অনুষ্ঠিত হচ্ছে। আজ মধ্যরাত থেকে নারায়ণগঞ্জের নির্বাচনী প্রচারণার শেষ হবে। নির্বাচনের প্রচারণা শেষে সাধারণ মানুষের মনোভাব বিশ্লেষণ করলে এটা বোঝা যায় যে, নির্বাচনে আওয়ামী লীগের প্রার্থী সেলিনা হায়াৎ আইভী অনেকটাই এগিয়ে আছেন।

অন্যদিকে বিএনপির স্বতন্ত্র হিসেবে দাঁড়ানো প্রার্থী তৈমুর আলম খন্দকার নির্বাচনী দৌড়ে পিছিয়ে পড়ে নানা রকম অভিযোগ উত্থাপন করছেন, যাতে নির্বাচনে পরাজয়ের পর পর তিনি এই সমস্ত অজুহাত সামনে আনতে পারেন। এই নির্বাচনের প্রচারণা শুরুর দিকে যে হাড্ডাহাড্ডি লড়াইয়ের কথা বলা হচ্ছিল, এখন তা অনেকটাই মিইয়ে গেছে।

তবে নারায়ণগঞ্জ নির্বাচনের ব্যাপারে বিভিন্ন সূত্র বলছে, এখনও সব কিছু শেষ হয়নি। নারায়ণগঞ্জ নির্বাচনে এখনও চমক রয়েছে। বিশেষ করে গত কয়েকদিন শামীম ওসমান এবং ওসমান পরিবারের রহস্যময় ভূমিকা নারায়ণগঞ্জে নানারকম গুঞ্জন তৈরি করেছে। উল্লেখ্য যে, সেলিনা হায়াৎ আইভী আওয়ামী লীগের মনোনয়ন পাওয়ার পরপরই শামীম ওসমান এবং ওসমান পরিবার তার বিরুদ্ধে অবস্থান নেয়।

অনেকের ধারণা, তৈমুর আলম খন্দকার শামীম ওসমানের ইঙ্গিতেই নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন। সেলিনা হায়াৎ আইভী তার নির্বাচনী প্রচারণায় একাধিকবার বলেছেন যে, তৈমুর আলম খন্দকার হলো গডফাদার শামীম ওসমানের প্রার্থী। নির্বাচনী প্রচারণায় বিভিন্ন সময়ে দেখা গেছে যে, শামীম ওসমানের নিজস্ব লোকজন সেলিনা হায়াৎ আইভীর সঙ্গে নির্বাচনী প্রচারণা অংশগ্রহণ করেনি।

বরং তৈমুর আলম খন্দকারের সঙ্গে ওসমান পরিবারের ঘনিষ্ঠ একাধিক ওয়ার্ড কাউন্সিলর প্রার্থীকে প্রচারণায় অংশ নিতে দেখা গেছে। এরকম বাস্তবতায় আওয়ামী লীগের শীর্ষ নেতারা হস্তক্ষেপ করেন এবং এই হস্তক্ষেপের মধ্যেই শামীম ওসমান একটি সংবাদ সম্মেলন করে নৌকার পক্ষে প্রচারণা করবেন বলে ঘোষণা করেন। একই সাথে তিনি তার অনুসারীদেরকে নৌকার পক্ষে প্রচারণার জন্য নির্দেশ দেন। উল্লেখ্য যে, নারায়ণগঞ্জে ওসমান পরিবারে ৪০ থেকে ৫০ হাজার ভোট রয়েছে এবং এই ভোটটি ওসমান পরিবার যেভাবে নির্দেশ দিবে, সেভাবেই প্রদান করা হয়।

এই ভোটব্যাঙ্কের ভোট শেষ পর্যন্ত আইভী পাবেন কি পাবেন না, সেটি এখন নারায়ণগঞ্জে বড় আলোচনার বিষয়। বিশেষ করে ওই সংবাদ সম্মেলনের পরপরই শামীম ওসমান রহস্যময় ভূমিকা পালন করছেন। তিনি বিভিন্ন পর্যায়ের কর্মীদের সঙ্গে নিয়মিতভাবে যোগাযোগ রাখছেন এবং তাদেরকে নির্দেশনা দিচ্ছেন। আসলে শামীম ওসমান কি করছেন, এটি এখন একটি বড় প্রশ্ন। এই নির্বাচনে তার ভূমিকা নিয়ে আওয়ামী লীগের মধ্যেই এখন ধূম্রজাল সৃষ্টি হয়েছে। শামীম ওসমানের অনুসারীরা বা ওসমান পরিবারের অনুসারীরা শেষ পর্যন্ত আইভীকে ভোট দিবেন কিনা, তা নিয়ে অনেকের সংশয় রয়েছে।

যদিও সেলিনা হায়াৎ আইভীর পক্ষ থেকে বলা হচ্ছে যে, শামীম ওসমানের অনুসারীরা আইভীকে ভোট দিলো কি দিলো না, তাতে কোনো কিছু যায় আসে না। কিন্তু বাস্তবতা হলো শামীম ওসমানের ভূমিকার উপর এই নির্বাচনের অনেক কিছুই নির্ভর করছে। শেষ পর্যন্ত শামীম ওসমান মুখে যা বলছেন তা করবেন কিনা, এ নিয়ে বিভিন্ন মহলের মধ্যে যথেষ্ট সন্দেহ রয়েছে।

Leave a Reply

Your email address will not be published.