Breaking News
Home / রাজনীতি / আবার মুখোমুখি হচ্ছেন তাপস-তাকসিম

আবার মুখোমুখি হচ্ছেন তাপস-তাকসিম

 

ঢাকা দক্ষিণের মেয়র শেখ ফজলে নূর তাপস, মেয়র হিসেবে দায়িত্ব গ্রহণ করেই জনবান্ধব এবং নাগরিক বান্ধব সিটি কর্পোরেশন করার জন্য তিনি কাজ করছেন, এবং যে চ্যালেঞ্জগুলো অতীতে কেউ মোকাবেলা করতে পারেনি, সে চ্যালেঞ্জগুলোকে ভালোভাবে সামাল দিচ্ছেন।

অন্যদিকে টানা ১১ বছর ঢাকা ওয়াসার এমডির দায়িত্ব পালন করার পাশাপাশি আবার তিন বছরের জন্য ওয়াসার এমডি পদে নিয়োগ দেয়া হয়েছে, তাকসিম এ খানকে। তিনি আগামী তিন বছরের জন্য ওয়াসার এমডি হিসেবে নিযুক্ত হয়েছেন। এই দুই প্রভাবশালী ব্যক্তির দ্বন্দ্ব এখন নতুন করে দানা বাধতে শুরু করেছে বলে জানা গেছে।

এই দ্বন্দ্বের প্রধান ইস্যু জলাবদ্ধতা। ঢাকায় আজ সারাদিন বৃষ্টি হয়েছে এবং আবহাওয়া পূর্বাভাসে বলছে, আগামীকালও বৃষ্টি হবে এবং এই বৃষ্টির কারণে ঢাকার অধিকাংশ এলাকা জলাবদ্ধতা সৃষ্টি হতে পারে বলে আশঙ্কা করা হচ্ছে। এই জলাবদ্ধতা নিয়ে ওয়াসার সঙ্গে দীর্ঘদিন ধরে সিটি কর্পোরেশনের বিরোধ চলছিল ।

যখন আনিসুল হক এবং সাইদ খোকন মেয়র ছিলেন, তখনও ওয়াসার এমডির সাথে তাদের বাহাস হয়েছে। কিন্তু ক্ষমতাবান ওয়াসার এমডির সঙ্গে, সেই বাহাসে পেরে উঠতে পারেননি সাইদ খোকন বা আনিসুল হক।

এবার যখন আতিকুল ইসলাম এবং শেখ ফজলে নূর তাপস মেয়র হিসেবে দায়িত্ব গ্রহণ করেছেন, তখন জলাবদ্ধতা নিয়ে স্থানীয় সরকার মন্ত্রণালয়ের বৈঠকে শেখ ফজলে নূর তাপস, জলাবদ্ধতার জন্য সরাসরিভাবে ওয়াসাকে দায়ী করেছেন। তিনি চ্যালেঞ্জ জানিয়ে স্থানীয় সরকার মন্ত্রী কে নিয়ে খাল পরিদর্শনে গেছেন, এবং সে খালটি রক্ষণাবেক্ষণের দায়িত্ব ওয়াসার। কিন্তু দেখা গেছে, বাস্তবে সে খালটি এখন ভরাট হয়ে গেছে। জলাবদ্ধতা নিরসনের জন্য যে কাজগুলো করা দরকার, সে কাজগুলো ওয়াসা করছে না বলে তাপস প্রকাশ্যে অভিযোগ করেছেন।

তাপস দায়িত্ব গ্রহণের পর একটি বিষয় স্পষ্ট করেছেন যে, তিনি জনগণের কল্যাণের জন্য যেটি ভালো মনে করে সেটি স্পষ্ট ভাবে বলেন এবং সেটি করেন । সেই কাজের ক্ষেত্রে কোনো বাধা, বিপত্তিকে তিনি আমলে নেন না। তার সবচেয়ে বড় প্রমাণ হলো, সাম্প্রতিক সময়ে ভাসমান তার উচ্ছেদ অভিযান। এ নিয়ে আইসিটি মন্ত্রণালয়, টেলিযোগাযোগ মন্ত্রণালয়ের সঙ্গে তাঁর কথা হয়েছে, কিন্তু তিনি অনড় অবস্থানে ছিলেন।

শেষ পর্যন্ত যারা ইন্টারনেট এবং কেবল অপারেটররা নিশ্চয়তা দিয়েছেন যে, নভেম্বরের মধ্যে তারা ভাসমান তারগুলো অপসারণ করবেন এবং মাটির নিচ দিয়ে তার দেয়ার সব ব্যবস্থা সম্পন্ন করবেন। সেই মুচলেকা দিয়েই দক্ষিনে তার উচ্ছেদের অভিযান সাময়িকভাবে স্থগিত করতে পেরেছেন। এখন তাপস জলাবদ্ধদতার ব্যাপারে স্পষ্ট এবং দৃঢ় অবস্থান নিয়েছেন বলে জানা গেছে। তিনি বলেছেন যে, ঢাকা শহর এরকম জলাবদ্ধতা এবং আবর্জনার নগরী থাকতে পারে না। এই জলাবদ্ধতা জন্য সিটি কর্পোরেশনের দায় খুব সামান্য বলেই তাপস মনে করেন।

এখানে মূল দায়িত্ব হলো ওয়াসার এবং ওয়াসা সেই দায়িত্ব যথাযথভাবে পালন করছে না, এ কথা বহুবছর ধরেই বলা হচ্ছে। কিন্তু ওয়াসার এমডি তাসকিন এ খান, এই জলজট নিরসনের জন্য তেমন কোন কিছুই করেনি। যদিও নতুন করে নিয়োগ পাওয়ার পর তিনি সংবাদ সম্মেলনে তার সাফল্যের ফিরিস্তি গেয়েছেন। তিনি ওয়াসার এমডি থাকা অবস্থায় গত ১১ বছরে কী বিপুল অগ্রগতি এবং সাফল্য অর্জন করেছেন তার ফিরিস্তিও দিয়েছেন।

কিন্তু একটু বৃষ্টি হলেই ঢাকা শহর যে বন্যা দুর্গত এলাকায় পরিণত হয়, সে ব্যাপারে তিনি নীরব । জানা গেছে, ঢাকা শহরে জলজটের প্রধান কারণ হলো এর চারপাশে যে খালগুলো আছে, সে খালগুলো বন্ধ হয়ে গেছে। যে খালগুলো দেখভালের দায়িত্ব ওয়াসার। পাশাপাশি ঢাকা শহরের মধ্যে যে ড্রেনেজ ব্যবস্থা আছে, সে ড্রেনেজ ব্যবস্থাও অকার্যকর এবং সে ড্রেনগুলো রাস্তার পানিকে টেনে প্রবাহিত করার সক্ষমতা হারিয়েছে । আর এই বিষয়গুলোর জন্য ঢাকা ওয়াসার যে তদারকি এবং দক্ষতা দরকার সেটি অর্জন করতে পারেনি। তবে তাসকিন এ খানের প্রভাব এবং ক্ষমতার কারনে কেউ প্রকাশ্যে ঢাকা ওয়াসার দায়িত্ব অবহেলার ব্যাপারটিও চ্যালেঞ্জ করতে পারেন নি।

তাপস এটি চ্যালেঞ্জ করেছেন, তিনি এই সমস্যা সমাধানের জন্য ওয়াসাকে চাপও প্রয়োগ করেছে। এখন আবার যখন জলাবদ্ধতা শুরু হল, তখন তাপস এবং তাসকিনের বিরোধ নতুন করে প্রকাশ্যে আসার সম্ভাবনা দেখা দিচ্ছে। বিশেষ করে সিটি কর্পোরেশনের একাধিক কর্মকর্তা বলেছেন, কালকে যদি জলজট হয় তাহলে শেখ ফজলে নূর তাপস, হয়তো ওয়াসার করণীয় সুনির্দিষ্টভাবে জনসম্মুখে প্রকাশ করবেন এবং ওয়াসাযেন জলাবদ্ধতা নিরসনে তার করণীয় কাজ গুলো করে, সে ব্যাপারে তিনি চাপও সৃষ্টি করবেন।

About mk tr

Check Also

মহাসচিব নিয়ে চমক দেবে তারেক?

  এখন এটা মোটামুটি নিশ্চিত হয়ে গেছে যে বিএনপির মহাসচিব পরিবর্তন এখন সময়ের ব্যাপার মাত্র। …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *