Breaking News
Home / Women Nutrition / মন্ত্রীকে মোটরসাইকেলে বসিয়ে ছুটলেন মেয়র

মন্ত্রীকে মোটরসাইকেলে বসিয়ে ছুটলেন মেয়র

 

চলমান উন্নয়ন কাজ এবং নতুন উন্নয়ন পরিকল্পনা গ্রহণের জন্য মন্ত্রী ও মেয়রের গাজীপুর সিটি করপোরেশনের কোনাবাড়ির জরুন এলাকায় আসার কথা ছিল গতকাল সকাল সাড়ে ১১টায়। সেই কারণে আগেই উপস্থিত হন স্থানীয় কাউন্সিলর, এলাকার গণ্যমান্য ব্যক্তিবর্গ।

নির্ধারিত সময়ে মন্ত্রী ও মেয়র জেলা প্রশসাকসহ উপস্থিত হয়ে দেখতে পান নির্মাণাধীন রাস্তা গাড়ি চলার অযোগ্য। মন্ত্রীকে নিয়ে গাড়ি থেকে নেমে পড়েন মেয়র। কেউ কিছু বুঝার আগেই এক সফর সঙ্গীর মোটরসাইকেল চেয়ে নিয়ে তাতে উঠে পড়েন তিনি। নিজে চালকের আসনে বসে পিছনে মন্ত্রীকে বসিয়ে প্রটোকল ছাড়াই ছুটেন কাজ পরির্দশনে।

অন্য আরেকটি বাইকে ছুটেন ডিসি। সফর সঙ্গীদের কেউ একজন মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক মন্ত্রী আ ক ম মোজাম্মেল হককে নিয়ে গাজীপুরের মেয়র মো. জাহাঙ্গীর আলম মোটরসাইকেল ছুটছেন এমন ছবি তুলে পোস্ট করেন সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে। মুহূর্তে ওই ছবি ভাইরাল হয়ে যায়। ৭নং ওয়ার্ডের কাউন্সিলর মো. কাউসার আহমেদ কালের কণ্ঠকে বলেন, আমাদের রাস্তা ও ড্রেনের সমস্যা প্রকট। খেলার মাঠ ও কবরস্থান নেই।

মেয়রের উদ্যোগে ২১ কোটি টাকা ব্যয়ে জরুন পল্লী বিদ্যুৎ থেকে নদীরপাড় (নামাপাড়া) পর্যন্ত সড়ক ও ড্রেনের কাজ চলমান রয়েছে। তাছাড়া নদীর পাড়ে ১.১৮ একর খাস জমিতে কবরস্থান এবং সম্প্রতি উদ্ধার হওয়া ৪.৮১ একর জমিতে খেলার মাঠ, কমিউনিটি সেন্টার, কাউন্সিলর কার্যালয় ও স্কুল নির্মাণের উদ্যোগ গ্রহণ করেন মেয়র। চলমান কাজ ও নতুন প্রকল্পের স্থান দেখতে শনিবার মেয়রের সঙ্গে মন্ত্রী ও জেলা প্রশাসকের আসার কথা ছিল।

এটি মন্ত্রীর নির্বাচনী এলাকা। নদীর পাড় যাওয়ার সড়কটি নির্মাণাধীন থাকায় মন্ত্রী, মেয়র ও জেলা প্রশাসক এস এম তরিকুল ইসলামের গাড়ি আটকে যায়। হেঁটেও এত দূরে যাওযা সম্ভব ছিল না। তাই অগ্যতা মেয়র এক সফর সঙ্গীর চেয়ে নিয়ে নিজে উঠে পড়েন। পরে মন্ত্রীকে পিছনে তুলে নিজেই চালিয়ে ছুটেতে থাকেন জরুন নদীরপাড়ে। তাদের দেখে গাড়ি থেকে নেমে অন্য একটি বাইকে ছুটেন জেলা প্রশাসকও।

তারা দুপুর পর্যন্ত কাজ ও নতুন প্রকল্পের জাযগাগুলো ঘুরে ঘুরে দেখেন। প্রবীণ এই মন্ত্রীকে বাইকে তুলে মেয়রের ছুটে চলা স্থানীয় বাসিন্দাদের মধ্যে বেশ উৎসাহের সৃষ্টি হয়েছে। মন্ত্রী ও মেয়রকে এভাবেই মোটরসাইকেলে দেখে নগরবাসী ও স্থানীয়রা অভিবাদন জানান। স্থানীয় বাসিন্দা মোবারক আলী বলেন, ‘গত ২০ বছর ধরে এলাকার মানুষ সড়ক ও ড্রেনের সমস্যায় ভোগছিল। মেয়র আমাদের সে সমস্যার সমাধান করে দিয়েছেন।

কবর স্থান ও খেলার মাঠ নেই। শ্রমিক অধ্যুষিত এলাকটিতে খেলার মাঠ কবরস্থানের আশা আমরা ছেড়েই দিয়েছিলাম। সে অভাবও শুনছি দূর হতে চলেছে। আমরা খুশি।’ স্থানীয় স্কুল শিক্ষক আনিসুর রহমান বলেন, মন্ত্রী মোজাম্মেল হক মুক্তিযুদ্ধের জীবন্ত কিংবদন্তি এবং ১৯ মার্চের মহানায়ক। প্রধানমন্ত্রীর পর তিনি দেশের সিনিয়র মন্ত্রী। আর মেয়র জাহাঙ্গীর আলম উন্নয়নের মহারূপকার। মেয়র নির্বাচিত হয়ে তিনি নতুন নতুন সড়ক, ড্রেনসহ নানা অবকাঠামো নির্মাণ করে নগরবাসীকে তাক লাগিয়ে দিয়েছেন।

জানা গেছে, গাজীপুর মহানগরজুড়ে প্রায় ৮০০ কিলোমিটার সড়ক ও ড্রেন নির্মাণের কাজ চলমান। সামনে বর্ষা মৌসুম, তাই দ্রুততম সময়ে কাজগুলো শেষ করতে সংশ্লিষ্টদের তাগিদ দিচ্ছেন মেয়র মো. জাহাঙ্গীর আলম। শুধু তাই নয়, মেয়র নিজে কখনো জিপে চড়ে, কখনো হেঁটে আবার কখনো মোটরসাইকেলে নগড়জুড়ে চষে বেড়াচ্ছেন। ১০-১২ দিন আগে স্থানীয় সরকারমন্ত্রী মো. তাজুল ইসলামকে নিয়ে তিনি নগরীর নির্মাণাধীন সড়ক, ড্রেনসহ বিভিন্ন অবকাঠামো ঘুরে দেখান। এসব উন্নয়নকাজ দেখে মন্ত্রী মেয়র মো. জাহাঙ্গীর আলমের প্রশংসা করেন।

About mk tr

Check Also

মালয়েশিয়ায় ‘ঝুঁকিপূর্ণ’ কোয়ারেন্টিন সেন্টার, ভিডিও ভাইরাল

  মালয়েশিয়ার একটি কোয়ারেন্টিন সেন্টারের ভিডিও সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ভাইরাল হয়েছে। শুক্রবার (৮ জানুয়ারি) মালয়েশিয়া …

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *