1. admin@spicynews24.com : admin :
  2. nfjsduwdwdyu@gmail.com : mk tr : mk tr
প্রবাসীর পশ্চাৎদেশে ১ কেজির বেশি গুড়া সোনা, ধরা খেলো বিমানবন্দরে -

প্রবাসীর পশ্চাৎদেশে ১ কেজির বেশি গুড়া সোনা, ধরা খেলো বিমানবন্দরে

  • আপডেটঃ রবিবার, ২৬ সেপ্টেম্বর, ২০২১
  • ১৭ বার পঠিত

 

শুক্রবার রাতে শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে এমিরেটস এয়ারলাইন্সের ফ্লাইটে দুবাই থেকে আসেন আনোয়ার হোসেন। তিনি কাস্টমস জোনে এসে ঘোষণা দেন তার সাথে ২টি সোনার বার আছে। তিনি শুল্ক পরিশোধ করে কাস্টম জোন থেকে বের হয়ে যাচ্ছেন। এমন সময় তার আচরণে সন্দেহ হয় কাস্টমস কর্মকর্তাদের। তাকে প্রশ্ন করা হয় আর সোনা আছে কী না।

আনোয়ার অস্বীকার করেন। এরপর আনোয়ার যখনই আর্চ ওয়ের ভেতর দিয়ে যাচ্ছে তখন মেশিন টুট টুট টুট করে শব্দ করছে। তার হাতে কোন ঘড়ি, আংটি নেই, বেল্টও খোলা হতো। তাহলে শব্দ করে কেন ? জিঙ্গাসাবাদে আনেয়ার শিকার করলে তার মলদ্বারে (পায়খানার রাস্তায়) আরও সোনা আছে। নিশ্চিত হতে তাকে একটি ক্লিনিকে নিয়ে এক্স-রে করা হয়।

এক্স-রে করে নিশ্চিত হওয়া যায় রেকটমে সোনা রয়েছে। পরবর্তীতে সেখান থেকে উদ্ধার হলো ১০১০ গ্রাম পেস্ট সোনা । তল্লাশি করে পাওয়া গেলো আরও দুটি সোনার বার, স্বর্ণালংকার ১১০ গ্রাম। সোনার অলংকার নিয়ে সমস্যা না থাকলেও আনোয়ার সোনার বার এনেছেন বেশি। ব্যাগেজ রুলস অনুযায়ী একজন যাত্রী ২৩৪ গ্রাম পর্যন্ত সোনা বার আনতে পারবেন এবং তার শুল্ক দিতে হবে। আনোয়ার বার এনেছেন ৪ টি, যার ওজন ৪৬৪ গ্রাম।

শুক্রবার রাতে দুবাই থেকে ঢাকায় আসে আনোয়ার, তার আর বাড়ি যাওয়া হলো না, যেতে হবে কারাগার। তার বিরুদ্ধে বিমানবন্দর থানায় সোনা চোরাচালানের মামলা করা হয়েছে। বাংলা এভিয়েশনকে আপনি হয়ত প্রশ্ন করবেন, তাহলে বিদেশ থেকে কি সোনা আনা যাবে না ? যদি আপনি সোনার ব্যবসা করতে চান, তাহলে আপনি আমদানীর অনুমিত নিয়ে বেশি পরিমানে সোনা দেশে আনতে পারবেন। আর আপনি নিজে বা পরিবারের ব্যবহারের জন্য সোনা আনতে চান, সেই সুবিধাও দেওয়া আছে জাতীয় রাজস্ব বোর্ডের ব্যাগেজ রুলসে।

স্বর্ণালংকার ১০০ গ্রাম পর্যন্ত শুল্কমুক্ত হিসেবে আনতে পারবেন। তবে একই ধরণের অলংকার ১২ টির বেশি হওয়া যাবে না। এরবেশি প্রয়োজন হলে তাও আনতে পারবেন। তবে অতিরিক্ত প্রতি গ্রামের জন্য শুল্ক পরিশোধ করতে হবে। কোন ভাবে যদি কাস্টম বুঝতে পারে আপনি ব্যবসা করার জন্য আনছেন তাহলে সোনা আটক করবে। আর চোরাচালান বলে মনে হলে কাস্টমস সরাসরি ফৌজদারি মামলা করবে। আটক রশিদ (detention memo) বুঝে নিবেন।

সোনার বারও নিজের ব্যবহারের জন্য আনা যাবে। তবে বার ১ গ্রাম আনলেও শুল্ক দিতে হবে। মোট ২৩৪ গ্রাম পর্যন্ত বার আনতে পারবেন। সাধারণত দুটি বারের ওজন ২৩৪ গ্রাম পর্যন্ত হয়। এর বেশি আনলে কাস্টমস তা আটক করবে। আটক রশিদ (Detention Memo) বুঝে নিবেন। বারের ক্ষেত্রেও চোরাচালান বলে মনে হলে কাস্টমস সরাসরি ফৌজদারি মামলা করবে।

সংবাদটি শেয়ার করুন

এই ধরনের আরও খবর পড়ুন
© 2021 | All rights reserved by Spicy News
Customized BY Spicy News